Home / রাজনীতি / বঙ্গবন্ধুর আদর্শ পৌঁছে দিতে হবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে: রাজীব
বঙ্গবন্ধুর আদর্শ পৌঁছে দিতে হবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে: রাজীব

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ পৌঁছে দিতে হবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে: রাজীব

স্টাফ রিপোর্টার: একটা সময় আমরা স্বাধীন ছিলাম না, আমাদের ছিলোনা কোন স্বাধীনতা, আমরা ছিলাম শিকলে বাঁধা নিপীড়িত জাতি। হাজার হাজার বছর ধরে পরাধীন ছিলাম। সেই পরাধীনতা থেকে মুক্তির পথ দেখিয়েছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি সাড়ে সাত কোটি বাঙালিকে একটি দেহে পরিনত করে দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর তিনি আমাদের স্বাধীনতা এনে দিয়েছিলেন। এই স্বাধীনতার মাধ্যমে আমরা বাংলাদেশ পেয়েছি। তাই বঙ্গবন্ধুর আদর্শ পৌঁছে দিতে হবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে বলে মন্তব্য করেছেন সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাভার উপজেলা চেয়ারম্যান মঞ্জুরুল আলম রাজীব।

সোমবার (৩০ আগস্ট) সাভারের তেঁতুলঝোড়া ইউনিয়নের ঋষিপাড়া এলাকায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৬ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে ‘স্বাধীনতা বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে তার মনোমুগ্ধকর
বক্তব্যে সভায় উপস্থিত সকল জনসাধারণ আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন।

তিনি বলেন, আমরা বাঙালি জাতি হয়েও কাগজে-কলমে, দলিলে জাতীয়তাবাদের জায়গায় লিখতে হতো পাকিস্তান। এমনকি আমরা যারা হজে যাইতাম তখন ভারতীয় পাসপোর্ট দিয়ে হজে যেতে হতো। শত শত বছর ধরে এভাবে চলেছে। আমাদের এই পরাধীনতা থেকে মুক্তি দিতে ১৯২০ সালের ১৭ই মার্চ টুঙ্গিপাড়ায় জন্ম হয় খোকার। তিনি ছোটবেলা থেকেই সকল শ্রেণী-পেশার মানুষের কাছে প্রিয় খোকা হয়ে উঠলেন। মানুষকে উজ্জীবিত করার চেষ্টা করলেন। মানুষের জন্য কথা বলার কারণে ছোট বয়সেও তাকে জেল খাটতে হয়েছে। সেই খোকা হয়ে উঠলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু দীর্ঘ ২৪ বছর আন্দোলনের পর তিনি হয়ে উঠলেন একমাত্র অবিসাংবাদিত নেতা। বাঙালি বঙ্গবন্ধুকে বিশ্বাস করতেন বঙ্গবন্ধুও বাঙালিকে বিশ্বাস করতেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সাড়ে সাত কোটি বাঙ্গালীরে একটি দেহে পরিণত করতে পেরেছিলেন। এজন্য বার বার কারাবরণ করতে হয়েছে তাকে। এভাবেই তিনি মানুষকে উজ্জীবিত করার চেষ্টা করেছেন।

মঞ্জুরুল আলম রাজীব বলেন, পরে ছয় দফার ভিত্তিতে ১৯৭০ সালে নির্বাচন হয়। পূর্ব বাংলার মাত্র দুইটি আসন বাদে সব আসনেই বিপুল ভোটে জয়লাভ করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তখন টিক্কা বলেছিলো আমি পূর্ব বাংলার মানুষ চাইনা আমি মাটি চাই। সত্তরের নির্বাচন ছিল কৌশল মাত্র। তখন বঙ্গবন্ধু রাষ্ট্রপ্রধান হয়ে বিভিন্ন দেশের প্রধানের সাথে আলোচনা করলেন। অতঃপর ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানে তিনি মুক্তিযুদ্ধের নির্দেশনা দেন। সেখানে তিনি লাখ লাখ মানুষের সামনে ১০৪ ডিগ্রি জ্বর নিয়ে সাড়ে ১৭ মিনিট ভাষণ দেন। সাড়ে ১৭ মিনিটের ভাষণে একটি নিরীহ, নিরস্ত্র জাতিকে সশস্ত্র জাতিতে পরিণত করলেন। এই ভাষনেই তিনি যুদ্ধের আহ্বান জানান। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলার মানুষ নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর স্বাধীনতা অর্জন করে। সারা বিশ্বের অনেক দেশ স্বাধীনতা অর্জন করেছে কিন্তু এত অল্প সময়ে কোন দেশ স্বাধীন হতে পারেনি। বঙ্গবন্ধু আমাদের স্বাধীনতা এনে দিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা স্বাধীনতা মানেই বঙ্গবন্ধু তাই বঙ্গবন্ধুর আদর্শ পৌঁছে দিতে হবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে।

তেঁতুলঝোড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক হিসেবে ভার্চুয়ালি উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাড কামরুল ইসলাম এমপি, বিশেষ আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাভার উপজেলা চেয়ারম্যান মঞ্জুরুল আলম রাজীব, ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাসুদ চৌধুরী, আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের আহবায়ক ফারুক হাসান তুহিন, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তেঁতুলঝোড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফখরুল আলম সমর প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*