Wednesday , September 26 2018
সর্বশেষ সংবাদ :
Home / সারাদেশ / তুহিনের মনোনয়ন প্রাপ্তির ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী আশুলিয়া থানা ছাত্রলীগের সভাপতি শামীম
তুহিনের মনোনয়ন প্রাপ্তির ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী আশুলিয়া থানা ছাত্রলীগের সভাপতি শামীম

তুহিনের মনোনয়ন প্রাপ্তির ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী আশুলিয়া থানা ছাত্রলীগের সভাপতি শামীম

মিঠুন সরকার: যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক সাভারের বাসিন্দা ফারুক হাসান তুহিনও আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঢাকা-১৯ আসন, সাভারে দলের মনোনয়ন প্রাপ্তির ব্যাপারে আশাবাদী। তিনি বরিশাল বিভাগ যুবলীগের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা। তিনি আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সাভারে বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছেন। এছাড়া তিনি খুলনা, গাজীপুর এবং বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ঐসব এলাকায় থেকে দলীয় প্রার্থীর পাশে নিরলসভাবে কাজ করেছেন। এব্যাপারে আশুলিয়া থানা শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি শামীমুল আলম শামীম বলেন, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক হাসান তুহিন মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে। তাকে দলীয় মনোনয়ন দিলে এ আসনে নিশ্চিত বিজয় সম্ভব। আমি দলের প্রার্থী হিসেবে ফারুক হাসান তুহিন কে যোগ্য মনে করি। অযোগ্য নেতাকে ফের মনোনয়ন দিলে এখানকার আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা হতাশ হবেন বলেও জানান শামীম। শামীমুল আলম শামীম আরো জানান, ফারুক হাসান তুহিন আমাদের আদর্শ। আমি শতভাগ আশাবাদী এবার মনোনয়ন পেয়ে ফারুক হাসান তুহিন সাভারের এমপি হবেন। এ ব্যাপারে ফারুক হাসান তুহিন বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঢাকা-১৯ আসন, সাভারে দলের মনোনয়ন চেয়েছি। আগামী নির্বাচনে আমি নৌকার টিকিট প্রত্যাশী। নৌকা পেলে বিজয় নিশ্চিত। আওয়ামী লীগের মনোনয়নের আলোচনা এখন সাভারের সর্বত্র শোনা যাচ্ছে। সাভারের বিভিন্ন এলাকার অলিগলিতে পোস্টার, ব্যানার দিয়ে জোর প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন তুহিনের কর্মী ও সমর্থকরা। জানা যায়, ঢাকা-১৯ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য ডা. এনামুর রহমান। তিনি এনাম মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের প্রতিষ্ঠাতা। ২০১৩ সালে রানা প্লাজা ধসের পর আহত শ্রমিকদের তাঁর হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা দিয়ে সাধারণ মানুষের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনারও নজর কেড়েছিলেন তিনি। ফলে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নবম জাতীয় সংসদের মনোনয়ন দেয় এনামকে। সেই সুযোগে বিনা ভোটে এমপি হন তিনি। এর আগে রাজনীতির সঙ্গে তাঁর কোনো যোগ ছিল না। কেন্দ্র থেকে ডা. এনামকে মনোনয়ন দিলেও তিনি অন্য কোন নেতাদের থেকে সমর্থন পাবেন না। বিএনপির দুর্গ বলে পরিচিত ঢাকা-১৯ (সাভার) সংসদীয় আসনটি ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ দখলে নেয়। জনবিচ্ছিন্ন ও হাসপাতালের নানা অনিয়মের কারণে এনামের বিরুদ্ধে জনগণের অনাস্থা রয়েছে। আসছে নির্বাচনে তাকে প্রার্থী করলে সাভারে বিরোধীপক্ষকে চ্যালেঞ্জ করা আওয়ামীলীগের জন্য কঠিন হয়ে দাঁড়াবে। উল্লেখ্য, এমপি এনামুর রহমান দাম্ভিকতার সঙ্গে বলেছেন, ‘তিনি নাকি (এনামুর) পাঁচজনকে ক্রসফায়ারে দিয়েছেন। আরও ১৪ জনকে লিস্টে রেখেছেন।’ অরাজনৈতিক ব্যক্তি দিয়ে রাজনীতি হয় না- এর প্রমাণ সাভারের সংসদ সদস্য ডা. এনামুর রহমান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*