Wednesday , September 26 2018
সর্বশেষ সংবাদ :
Home / সারাদেশ / সাভারে এনাম হাসপাতালে আবারো ভুল চিকিৎসায় শিশুর মৃত্যু
সাভারে এনাম হাসপাতালে আবারো ভুল চিকিৎসায় শিশুর মৃত্যু

সাভারে এনাম হাসপাতালে আবারো ভুল চিকিৎসায় শিশুর মৃত্যু

সাভার প্রতিনিধি: সাভারে এনাম মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় সিয়াম (১১) নামের পঞ্চম শ্রেণীর এক শিক্ষার্থীর মৃত্যুর অভিযোগ করেছে তার পরিবার। বুধবার রাত আটটার দিকে ওই হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে। নিহত শিশু ধামরাই পৌর এলাকার রেজাউল করিমের ছেলে ও স্থানীয় একটি স্কুলের পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্র। স্কুল ছাত্রের চাচা শরীফুল ইসলাম বলেন, তার ভাইয়ের ছেলে সিয়ামের প্রচন্ড জ¦র হলে বুধবার সন্ধ্যায় তাকে ধামরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে চিকিৎসার পর ওই শিশুকে বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। তবে উন্নত চিকিৎসার জন্য শিশুকে বাড়িতে না নিয়ে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে ভর্তির উদ্দেশ্যে নিয়ে যান তার পরিবার। এদিকে রাত আটটার দিকে স্কুল ছাত্রকে এনাম মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুর শরীরে ইনজেকশন পুশ করেন। এর পর পরই স্কুল ছাত্রের অবস্থার অবনতি হলে তাকে দ্রুত ওই হাসপাতালের নিবীড় পরিচর্যা পর্যবেক্ষন কেন্দ্রে নিয়ে গেলেও শিশুটির মৃত্যু হয়। পরে রাতেই হাসপাতালের এ্যাম্বুলেন্স দিয়ে স্কুল ছাত্রের মৃতদেহ ধামরাই পাঠিয়ে দেওয়া হয়। নিহতের চাচা অভিযোগ করে বলেন, ইনজেকশ পুশ করার সময় ওই কর্তব্যরত চিকিৎসকের নাম জানতে চাইলেও তিনি নাম প্রকাশ করেনি। এছাড়াও ভুল ইনজেকশন পুশের কারনে তার ভাতিজার মৃত্যু হয়েছে এমন দাবী জানালে বরং ওই চিকিৎসক ইনজেকশন পুশ করতে পারেন বলে দাবী করেন। এব্যাপারে সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. আমজাদুল হক বলেন, অবহেলায় রোগী মারা গেলে সে বিষয়েও খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ব্যাপারে এনাম মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের কেউ কথা বলতে রাজী হয়নি। উল্লেখ্য, এর আগেও ১৪ জুলাই প্রসব বেদনার কারণে স্ত্রী হ্যাপি আক্তারকে সাভারের এনাম মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করান স্বামী আনিসুর রহমান। পরে টানা নয়দিন ভর্তি থাকার পর ২৫ জুলাই হ্যাপি আক্তারের সিজারের মাধ্যমে একটি সন্তান জন্ম নেয়। এরপর গত ১৭ আগস্ট নবজাতক ও মা সুস্থ থাকার পর হাসপাতালের বিল ১২ লাখ টাকা পরিশোধ করতে না পারায় প্রায় দুই মাস ধরে তাদের নজরদারিতে রাখার বিষয়টি গণমাধ্যমে প্রকাশ পায়। তবে হাসপাতালের সম্পূর্ণ বিল পরিশোধ করতে না পারায় তাদেরকে আর যেতে দেওয়া হয়নি। আশুলিয়ার শিমুলিয়া এলাকার কাঠমিস্ত্রি শঙ্কর সূত্রধরের গত ৩ নভেম্বর তার স্ত্রী ও নবজাতককে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে (আইসিইউতে) ভর্তি করা হয়। বিল পরিশোধ করতে না পারায় শিলাকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আইসিইউতেই আটকে রাখে। দিনের পর দিন এমন ঘটনা ঘটলেও এনাম মেডিকেলের বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি কোন ব্যবস্থা না নিয়ে তাদের রক্ষা কবচ প্রদান করে। এমনকি মেডিকেলের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করায় সম্প্রতি এক সাংবাদিককে ৬টি মামলায় জালে ফেলেন এনাম মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতালের কর্ণধার ও সাভারের স্থানীয় সংসদ সদস্য এনামুর রহমান ও তার সহযোগীরা। অভিযোগ রয়েছে, সংসদ সদস্য হওয়ার পর চিকিৎসা সেবার নামে গলাটাকা ফি আদায় করেন তিনি। চিকিৎসার নামে প্রতি রোগীর কাছ থেকে কয়েক গুণ অর্থ আদায় করে থাকেন মেডিকেল কর্তৃপক্ষ। প্রতিষ্ঠানটি শত শত দালাল নিয়োগ করেছে। মানুষ অসুস্থ হলেই দালাল চক্র নানা সুবিধার কথা বলে এনাম মেডিকেলে এনে ভর্তি করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*